গীতাবাণী

জীবনে উন্নতি করতে চাইলে গীতার এই ৭টি উপদেশ আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে!

শ্রীমদ্ভগবদগীতা শুধুমাত্র একটি ধর্মগ্রন্থ নয়। গীতার বাণী ও উপদেশ কাজে লাগিয়ে আমাদের জীবনকে আনন্দময় ও সুন্দর করে গড়ে তোলা যায়। কুরুক্ষেত্র প্রান্তরে নিশ্চিত যুদ্ধের প্রাক্কালে ভগবান শ্রীকৃষ্ণ ও অর্জুনের মধ্যকার কথোপকথন গীতাতে বর্ণিত হয়েছে। শ্রীকৃষ্ণের বাণী ও উপদেশে হতবুদ্ধিসম্পন্ন অর্জুন সঠিক পথ ফিরে পেয়েছিলেন।

আজ এতো শতাব্দী পেরিয়েও গীতার উপদেশ এখনও প্রাসঙ্গিক। জীবন সম্পর্কে গীতার ৭টি উপদেশ আজ আমরা আপনাদের সাথে আলোচনা করবো।

চলুন তবে দেখে নেয়া যাক গীতার কয়েকটি উপদেশ-

১) কাজ কর, ফলের কথা ভেব না

গীতায় বলা হয়েছে, ‘কর্মেণ্য বাধিকরস্তে মা ফলেষু কদাচন’। অর্থাৎ ফলের কথা না ভেবে কর্ম করে যাও। এই শ্লোকের মাধ্যমে শুভ ও জনহিতকর কাজের কথা বলা হয়েছে। বর্তমান জীবনেও গীতার এই উপদেশ আমাদের মেনে চলা উচিত।

২) যা হয় ভালোর জন্য হয়

অতীত নিয়ে আমাদের দুঃখ করার কিছু নেই। ভবিষ্যৎ নিয়েও অহেতুক কোন চিন্তা নয়। বর্তমান যা ঘটছে সেটা ভালোর জন্যই ঘটছে। খারাপ সময় এলে হতাশ হবেন না। মনে রাখবেন যা ঘটছে সেটা ভালোর জন্যই ঘটছে। কাজেই হতাশ হবেন না। খারাপ সময়ের কালো মেঘ কেটে দ্রুতই ভালো দিনের আবির্ভাব ঘটবে।

আরো পড়ুনঃ শ্রীমদ্ভগবদগীতা যথাযথ ১ম অধ্যায়ঃ অর্জুনবিষাদযোগ

geeta bani
ভগবান শ্রীকৃষ্ণ

৩) আত্মা ও শরীরের সম্পর্ক

অগ্নি, জল, বায়ু, পৃথ্বী এবং ব্যোম – এই পঞ্চভূত বা উপাদানে আমাদের রক্তমাংসের শরীর তৈরী। এর ক্ষয় আছে, তবে শরীর অন্তর্ভূত আত্মা, যার কোন ক্ষয় নেই। দেহের মৃত্যু হয়, কিন্তু আত্মা অমর। আত্মার তৃপ্তির জন্যই আমাদের কর্ম।

৪) আমরা খালি হাতে এসেছি

এই পৃথিবীতে আমাদের জন্ম হয়েছে খালি হাতে। কোন একটা নির্দিষ্ট লক্ষ্যকে কেন্দ্র করে প্রতিটা মানুষ পৃথিবীতে আসে। আমাদের সেই লক্ষ্য খুঁজে পেতে হবে। মনে রাখতে হবে, অর্থই অনর্থের মূল। তাই কখনোই অর্থ-সম্পদের প্রতি লোভ-লালসা থাকতে নেই। আমরা যাই উপার্জন করিনা কেন, তা চিরকাল থাকবেনা।

৫) কু-চিন্তাকে প্রশ্রয় দেবেন না

বিভিন্ন প্রেক্ষাপটে আমাদের মনে কুচিন্তা বাসা বাঁধে। আর নেতিবাচক ভাবনা সবসময়ই আমাদের আকৃষ্ট করে। কিন্তু মনে রাখতে হবে আপনার কুচিন্তার বলি যেন অন্য কাউকে হতে না হয়। ধ্বংসাত্বক মানসিকতা নিয়ে ভালো মানুষ হওয়া যায়না।

আরো পড়ুনঃ শ্রীমদ্ভগবদগীতা যথাযথ ২য় অধ্যায়ঃ সাংখ্য-যোগ

৬) ধ্বংস অনিবার্য

প্রতিটি জড় ও জীবের নির্দিষ্ট জীবনচক্র রয়েছে। কোন কিছুই স্থায়ী বা অমর নয়। এটাই জীবনের মূল সত্য।

জড়-জীব সবকিছুরই নির্দিষ্ট জীবনচক্র আছে। কোনও কিছুই স্থায়ী বা অমর নয়। এটাই জীবনের মূল সত্য।

৭) সবকিছুই পরিবর্তনশীল

এ জগতটাই পরিবর্তনশীল। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে মানুষও বদলে যায়, সমাজের বিকাশ হয়। মনে রাখবেন পরিবর্তনই একমাত্র ধ্রুব সত্য।

আরো পড়ুনঃ শ্রীমদ্ভগবদগীতা যথাযথ – ৩য় অধ্যায়ঃ কর্মযোগ

Leave a Reply

Back to top button
close
error: Content is protected !!